Skip to main content

Posts

Featured

দ্য কিউরিয়াস ইনসিডেন্ট অব দ্য ডগ ইন দ্য নাইট টাইম

সম্প্রতি পড়া মনের উপর প্রভাব ফেলা অন্যতম একটা বই। ব্রিটিশ লেখক মার্ক হ্যাডন ২০০৩ সালে বইটি লিখে আলোচনায় আসেন, বোয়েক প্রাইজ, হুইটব্রেড প্রাইজ,কমনওয়েলথ রাইটারস প্রাইজ ফর বেস্ট ফার্স্ট বুক সহ অনেক অনেকগুলো পুরস্কার অর্জন করে, এছাড়া ম্যান বুকার প্রাইজের লংলিস্টে ছিল।
বইটা এক কিশোরের ফার্স্ট পারসন পয়েন্ট অব ভিউ থেকে বর্ণিত হয়েছে, ক্রিস্টোফার নামক এ কিশোরটি অটিজম বা স্যাভান্ট সিন্ড্রমে আক্রান্ত, তবে লেখক এটা পরিষ্কার করে না। আমার কাছে মনে হয়েছে অটিজম।অটিস্টিক শিশুরা কিভাবে চিন্তা করে সেটা এখনো বেশ ধোঁয়াশাপূর্ণ মেডিকেল সায়েন্সে, লেখক যদিও স্বীকার করেছেন তিনি এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ নন, তবে ক্রিস্টোফারের চিন্তাভাবনা পড়ে মনে হয়- হয়তো এভাবেই তারা চিন্তা করে।
বইটা শুরু হয় একটা রহস্য উপন্যাসের মত করে, ক্রিস্টোফারের এক প্রতিবেশীর কুকুরের খুন হওয়া এবং সেটার রহস্য উদঘাটনে ক্রিস্টোফারের তদন্তে নামা দিয়ে। তবে এটা মোটেও রহস্য উপন্যাস না, এ ধরনের উপন্যাসকে হয়তো নীরিক্ষাধর্মী বলা চলে যেগুলো আসলে জনরায় ফেলা বেশ কঠিন।
ক্রিস্টোফারের চিন্তাগুলো বেশ ইন্টারেস্টিং এবং যৌক্তিক। কিছু কিছু চিন্তায় বেশ চমকে উঠতে হয়।
যেমন…

Latest Posts

গল্প: চানাচুর বিষয়ক গবেষণা

ইজেল ছেড়ে বেড়িয়ে আসা একঝাঁক কালো কবুতর (পর্ব ১)

পিত্ত আর কাশির ব্যামোয় ধরবে হলুদ রঙ

বই: যদি একে রূপকথা বলি। অহনা বিশ্বাস

ডাক্তারের হাতের লেখা নিয়া হাইকোর্ট দেখা

সুন্দর বনটা তোদের খাওয়ায় না পড়ায়

নিমিদের শহরে কোলা মিয়া ও রাজকুমারী রাতাতা ( পর্ব ১ )

বাচ্চাদের হুমায়ূন আহমেদ

একজন ভাগ্যবান মানুষ!

সিজারিয়ান সেকশন না নর্মাল ডেলিভারি : আপনি কিভাবে সিদ্ধান্ত নেবেন, আপনার ডাক্তার কিভাবে সিদ্ধান্ত নেয় এবং স্বাস্থ্য গবেষকরা কি বলে?